আজ শনিবার, ২৪ অগাস্ট ২০১৯ ইং | ৮ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সিরাজগঞ্জে শিক্ষককে তুলে নিয়ে মারধর

মাতৃভূমি ডেস্কঃ
প্রকাশিতঃ ২৬ মে ২০১৯ সময়ঃ রাত ১ঃ৪৪
সিরাজগঞ্জে শিক্ষককে তুলে নিয়ে মারধর

 

আলিম আকন্দ, সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধিঃ

এক গৃহ শিক্ষককে বাড়ির সামনে থেকে তুলে নিয়ে বেধড়ক পিটুনির অভিযোগ উঠেছে এক শিক্ষার্থীর অভিভাবকের বিরুদ্ধে। পরে স্বজনদের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে অপহরণের ২ ঘণ্টা পর ওই শিক্ষককে উদ্ধার করে পুলিশ। এমন ঘটনা ঘটেছে সিরাজগঞ্জের সদর থানা এলাকায়।

উদ্ধারের পর ওই শিক্ষকের স্ত্রী সিরাজগঞ্জ সদর থানায় স্বামীকে অপহরণ ও মারধরের অভিযোগ করেছেন। এরপর ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে নিজের মেয়েকে দিয়ে যৌন হয়রানির পাল্টা অভিযোগ করান অভিযুক্ত অভিভাবক। 

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় মেডিনোভা হাসপাতালের সামনে থেকে মো. আব্দুস সালাম নামে ওই শিক্ষককে অপহরণ করা হয়। তিনি জেলার কামারখন্দ উপজেলার ড. সালাম-জাহানারা ডিগ্রি কলেজের রসায়ন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক। পরে রাতে শহরের বড়গোলা পট্টির তালুকদার ডেন্টাল ক্লিনিকের ভেতর থেকে তাকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে পুলিশ। এরপর প্রথমে তাকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে পাঠানো হয় তাকে।

এ বিষয়ে ওই শিক্ষকের স্ত্রী সালমা খাতুন গণমাধ্যামকে জানান, তার স্বামী তালুকদার ডেন্টাল ক্লিনিকের মালিক মোস্তাক আহম্মেদ মিঠুর মেয়ের গৃহশিক্ষক। 

সালমা খাতুন আরো বলেন, কয়েক মাসের বকেয়া টিউশন ফি পরিশোধে বারবার তাগাদা দেওয়ায় আমার স্বামীকে অপহরণ ও মারপিট করে জোরপূর্বক সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নেওয়া হয়। এ ঘটনায় থানায় অভিযোগ থানায় দেবার পর অপহরণকারীরা উল্টো আমার স্বামীর বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির মিথ্যে অভিযোগ দিয়েছে। 

তবে অভিযুক্ত অভিভাবক মোস্তাক আহম্মেদ মিঠুর দাবি, তার মেয়েকে যৌন হয়রানি করায় গৃহ শিক্ষককে উপযুক্ত শাস্তি দেওয়া হয়েছে মাত্র। সেটি অপহরণ নয়। 

এদিকে, এ ঘটনায় শুক্রবার রাতে দু’টি অভিযোগ সদর থানায় জমা পড়লেও তার একটিও শনিবার সকাল পর্যন্ত রেকর্ড হয়নি। 

ওই শিক্ষককে উদ্ধারকারী সদর থানার (এসআই) আলী জাহান বলেন, মোবাইল ট্র্যাকিং করে শিক্ষককে উদ্ধার করা হয়েছে। 

Design & Developed by ProjanmoIT