আজ মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯ ইং | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বিএনপি কমিশনারের মেয়ে ছাত্রলীগের কেন্দ্রিয় নেত্রি!

অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশিতঃ ১৬ মে ২০১৯ সময়ঃ ভোর ৫ঃ০০
বিএনপি কমিশনারের মেয়ে ছাত্রলীগের কেন্দ্রিয় নেত্রি!

বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সদ্য ঘোষিত পূর্ণাঙ্গ কমিটি নিয়ে  পদ বঞ্চিতদের আন্দোলনের মুখে অবশেষে ৩০১ সদস্যের কমিটির বেশ কয়েকজন বাদ পড়তে যাচ্ছেন।

ইতিমধ্যে দলের নীতি ও আদর্শ বিরোধী ১৭ জনের নাম প্রকাশ করেছে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটি। বুধবার (১৫ মে) রাতে রাজধানীর ধানমণ্ডিতে দলীয় সভাপতির কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে এ তথ্য জানান ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী। মূলত বিবাহিত, মাদকাসক্ত ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী নানা অভিযোগের ভিত্তিতে এ তালিকা করা হয়। একইসঙ্গে অভিযোগ প্রমাণের ভিত্তিতে আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তাদের বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলেও জানানো হয়।

এই ১৭ জন ছাড়াও আরো অনেকে বিতর্কিতরা এখনো আছে কমিটিতে, যাদের নাম আসেনি সংবাদ সন্মেলনে।  তাদের মধ্যে অন্যতম গাজিপুরের সামিহা সরকার সুইটি।

তাকে নিয়ে ছাত্রলীগ কর্মী সামিরা তাসনিম আখি তার ফেসবুক ওয়ালে শোভন রাব্বানীর উদ্দেশ্যে লেখেন...।

 

বিএনপির একজন কমিশনার ও তার মেয়ের ছাত্রলীগে উত্থান...!!!

শোভন ভাই রাব্বানী ভাই এই মেয়ের কি করবেন ? 

সামিহা সরকার সুইটি।

শামসুন্নাহার হল,ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

বাবার নামঃ সবুর সরকার(বিএনপি মনোনীত সাবেক কমিশনার ২০০৩-২০১১)  সভাপতিঃ ০৯ নং ওয়ার্ড,কালিয়াকৈর পৌরসভা বিএনপি,গাজীপুর।

বাবা কালিয়াকৈর এর বি এন পির সভাপতি ও সাবেক বি এন পির কমিশনার।যার নেতৃত্বে নৌকার প্রচারণার গাড়িতে হামলা হয়েছিলো"

 

নেতৃবৃন্দ তদন্ত এবং খোঁজ নিয়ে দেখতে পারেন!

 

ভাই সেচ্ছাসেবক দলের সহ সাংগঠনিক সম্পাদক, বোন দুলাভাই জামাতের সক্রিয় নেতা। কোঠা আন্দোলনে সরকার ও ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে লেখালেখি করেছে অনেক, যা ঢাবির অনেকের জানা। অবৈধভাবে ভর্তির অভিযোগ ও আছে এই মেয়ের,এখন শার্তের জন্য ভাইলীগ সাজছে।তাকে অনেক অপকর্মের জন্য হল থেকেও বের করে দেয়া হয়েছিল।

 

মাইলস্টোন স্কুলে পড়াকালীন মাইলস্টোন কলেজের রাজিব নামের একটি ছেলের সাথে সম্পর্ক ছিল।পরবর্তিতে শহিদুল্লাহ হলের রানা নামের আরেক ছেলের সম্পর্ক হয়।রানা ঢাবির প্রশ্নপত্র ফাঁস চক্রের অন্যতম হোতা ছিল।মেয়েটি রানার ফাঁস করা প্রশ্ন দিয়ে ঢাবিতে ভর্তি হয়।রানা গত কমিটির সাইফুর রহমান সোহাগ ভাই ও এস.এম. জাকির ভাইয়ের কমিটির সহ সম্পাদক ছিল।অপকর্মের কারণে তাকে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ ও পরবর্তীতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করা হয়।

 

২০১২ সালে বিয়ে ওর বিয়ে হয়,কাবিননামা নিচে দেওয়া আছে,হল কর্তৃপক্ষ শৃংখলা ভঙ্গের কারণে হল থেকে নাম কেটে বের করে দেয়।

সুত্র Samira Tasnim Akhi

Design & Developed by ProjanmoIT