আজ শুক্রবার, ২৩ অগাস্ট ২০১৯ ইং | ৮ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ডাবল সেঞ্চুরিতে ইতিহাস গড়লেন সৌম !

মোল্যা আনিসুর রহমান আনিস
প্রকাশিতঃ ২৫ এপ্রিল ২০১৯ সময়ঃ সকাল ৮ঃ১০
ডাবল সেঞ্চুরিতে ইতিহাস গড়লেন সৌম !

বাংলাদেশের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে ডাবল সেঞ্চুরিতে গড়লেন লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে ইতিহাস (২০৮ নট আউট)। যে ছেলেটির ওয়ার্ল্ড কাপ দলে জায়গা নিয়ে তুলেছেন যারা প্রশ্ন, ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগের প্রথম ১১ ইনিংসে ১৯৭ রানে যার ফর্ম নিয়ে উঠেছে প্রশ্ন, সেই সৌম্য মঙ্গলবার দিয়েছেন সব সমালোচনার জবাব। তাইজুলকে ছক্কায় ১৪৯ তম বলে ডাবল সেঞ্চুরিতে নিজের সক্ষমতা দিয়েছেন জানিয়ে। 

সপ্তাহ খানিক আগেও সৌম্য ভক্তদের চিন্তার অন্যতম কারণ ছিলো ওয়ার্ল্ড কাপে সৌম বাংলাদেশ দলে থাকবে তো! নির্বাচকরা যে সৌমকে দলে রেখে ভুল করেননি তার প্রমাণ সৌম করে দেখালেন এবার। 

 

১ দিন আগে মোহামেডানের বিপক্ষে ৭৯ বলে ১০৬ রানের ইনিংসে ফিরেছেন ফর্মে। চান্সলেস ওই ইনিংসে উজ্জীবিত সৌম্য লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে এক ম্যাচে বাংলাদেশ ব্যাটসম্যানদের মধ্যে রেকর্ড ছক্কা ও (১৬টি) মেরেছেন। লিগের শেষ ম্যাচে শেখ জামাল ধানমন্ডীর বিপক্ষে ১৫৩ বলে ১৩৫.৯৪ স্ট্রাইব রেটে ২০৮ রানের ইনিংসে চারের চেয়ে ছক্কার আধিক্য ছিল বেশি। ১৪টি চারের পাশে ১৬টি ছক্কা মেরেছেন সৌম্য। শুধু চার-ছক্কা থেকে এসেছে তার ১৬২ রান। যেখানে সিঙ্গল ডাবলে নিয়েছেন ৪৬ রান মাত্র। 

 

দিনটি একান্ত তার, নাসিরকে বাউন্ডারিতে প্রথম স্কোরিং শটে শুরুতেই জানিয়ে দিয়েছেন তা।  ৮ম ওভারে নাসিরকে ২টি,২৮তম ওভারে মিনহাজুল আফ্রিদিকে ২টি, ৩১তম ওভারে তাইজুলকে ৩টি ছক্কায় ওয়ার্ল্ড কাপের প্র্যাকটিসটা করেছেন সৌম্য। লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে এক ইনিংসে সর্বোচ্চ ছক্কার রেকর্ড নামিবিয়ার সাইনানের (১৭টি ছক্কা)। তবে ২০০৭ সালে উইন্ডহকে ১৯৬ রানের ইনিংসে চার-ছক্কায় তার রানের সমস্টি ছিল (৭ চার,১৭ ছক্কা) ১৩০। ২০১৩ সালে বেঙ্গালুরুতে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে  ২০৯ রানের ইনিংসে ১২ চারের পাশে ১৬ ছক্কা মেরেছেন ভারতের টপ অর্ডার রোহিত শর্মা। ২০১৫ ওয়ার্ল্ড কাপে ক্যানবেরায় জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ১০ চারের পাশে ১৬টি ছক্কা মেরেছেন ব্যাটিং দানব গেইল। এই দুই গ্রেটের ছক্কার সংখ্যাকে ছুঁয়েও চার-ছক্কায় রান সংগ্রহে টপকে গেছেন তাদেরকে সৌম্য। 

 

প্রথম ফিফটিতে সৌম্য খেলেছেন ৫২টি বল, ১০০ তে লেগেছে ৭৪ বল। ফিফটির পর অন্য এক সৌম্যকে দেখেছে দর্শক। শেখ জামাল ধানমন্ডীর ৩১৭/৯ চেজ করতে নেমে দায়িত্বটা যেনো একাই নিয়েছিলেন সৌম্য। দ্বিতীয় ফিফটিতে খেলেছেন মাত্র ২২টি বল, তৃতীয় ফিফটিতে ৩০ বল, চতুর্থ ফিফটিতে সেখানে ৪৫টি বল ! লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে এদিন প্রথম  উইকেট জুটিতে বাংলাদেশের রেকর্ডটাও করেছে আবাহনী। ৩১২ রানের পার্টনারশিপের নায়কও সৌম্য। পার্টনার জহুরুলকে করেছেন উদ্বুদ্ধ। ১২৮ বলে এই ওপেনার করেছেন লিগে তৃতীয় সেঞ্চুরি । যে ছেলেটি প্রথম ১১ ইনিংসে করেছেন মাত্র ১৯৭, সেই ছেলেটিই শেষ ২ ইনিংসে করেছেন ৩১৪ রান ! ঠিক সময়েই জ¦লে উঠেছেন সৌম্য। 

 

নিজেকে বদলে ফেলেছেন, তার পেছনে ভারতীয় টেস্ট ক্রিকেটার, টিমমেট ওয়াসিম জাফর টনিক হিসেবে কাজ করেছেন বলে জানিয়েছেন সৌম্য-‘ওয়াসিম জাফর অনেক বড় খেলোয়াড়, যার নামের পাশে প্রথম শ্রেণি ও অন্যান্য ক্রিকেট মিলে ৪০ হাজারের মতো রান। তার প্রচুর বড় ইনিংস রয়েছে।’  

Design & Developed by ProjanmoIT